প্রচ্ছদ

প্রতিষ্ঠার দেড় বছর না পার হতেই এবি পার্টি থেকে গণপদত্যাগ!

2021/09/11/_post_thumb-2021_09_11_02_21_31.jpg

আমার বাংলাদেশ পার্টি (এবি পার্টি) থেকে গণপদত্যাগ করেছেন দলটির শীর্ষ স্থানীয় নেতাসহ জেলা ও মহানগরীর ২০ নেতা-কর্মী।

শুক্রবার দলটির বিভিন্ন স্তরের নেতারা পদত্যাগ করেছেন। দলটির যাত্রা হয়েছে ২০২০ সালের মে মাসে। মাত্র দেড় বছরের মাথায় কেন্দ্রীয় নেতাসহ ঢাকা মহানগরী ও জেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের পদত্যাগের ঘটনা ঘটলো।

জানা যায়, এবি পার্টি থেকে পদত্যাগকারী ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সেক্রেটারি আব্দুল্লাহ আল হাসান সাকীব জানান, তারা একসাথে ২০ জন নেতা পদত্যাগ করেছেন। এসব নেতারা আজ বিকেলে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টিতে যোগদান করেছেন।

পদত্যাগকারী শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে রয়েছেন-কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক ড. শাহেদ চৌধুরী, যুগ্ম সদস্য সচিব আব্দুল আউয়াল মামুন, সহকারী সদস্য সচিব মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী, কেন্দ্রীয় নারী নেত্রী রেখা আকতার, ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি নাজমুল হুদা অপু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি উবাইদুল্লাহ মামুন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সেক্রেটারি আব্দুল্লাহ আল হাসান সাকীব, ব্রাম্মনবাড়ীয়া জেলা সভাপতি ইব্রাহিম খান সাদাত, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সদস্য সচিব তাফহীমুল ইসলাম প্রমুখ। পদত্যাগকারী নেতারা জানান, এবি পার্টির আহবায়ক সোলায়মান চৌধুরী ও সদস্য সচিব মুজিবুর রহমান মঞ্জুকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পদত্যাগের বিষয়টি জানিয়েছেন। 

পদত্যাগকারী ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সেক্রেটারি আব্দুল্লাহ আল হাসান সাকীব বলেন, যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে আমরা এবি পার্টিতে যোগদান করেছিলাম শীর্ষ নেতৃত্ব লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য থেকে অনেক দূরে সরে গেছে। তাই তাদের শ্রম ও অর্থ বিনিয়োগ বৃথা হবে বলে আমি মনে করি। একই সাথে তিনি বলেন, এবি পার্টির শীর্ষ নেতৃত্বের যে বৈশিষ্ট্য বা ব্যক্তিত্ব থাকা দরকার তা এবি পার্টির শীর্ষ নেতৃত্বের নেই। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশকে তারা ভালো কিছু উপহার দিতে পারবে না। ফলে তারা হতাশা থেকে পদত্যাগ করেছেন। এবি পার্টি থেকে পদত্যাগকারী সকলে আজ বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টিতে যোগদান করেছেন বলেও জানিয়েছেন কল্যাণ পার্টির দফতর সম্পাদক আল আমিন ভূঁইয়া রিপন।

মন্তব্য