ঢাকা ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৪ ছাত্রলীগকর্মীকে কোপালেন বহিষ্কৃত নেতা

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৭:১২:৫০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ১২০ বার পড়া হয়েছে

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতির হাঁসুয়ার আঘাতে ছাত্রলীগের চার কর্মী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজনের পেটের নাড়িভুড়ি বের হয়ে গেছে।

রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুমারখালী শহিদ গোলাম কিবরিয়া সেতু এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন— পৌরসভার কাজীপাড়া গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে আরিফুল ইসলাম (২৫), বাটিকামারা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে সবুজ (২৫), বড় মালিয়াট গ্রামের খালেক আলীর ছেলে জুয়েল ও সম্রাট (২৪)।

আহত সম্রাট জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহিদ গোলাম কিবরিয়া সেতু এলাকায় চা পান করতে গেলে পৌর ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহসভাপতি পাপ্পুর নেতৃত্বে তুর্য, রামিম, আলিফসহ ৪-৫ জন এসে তাদের এলোপাতাড়ি কুপিয়ে চলে যায়। এ সময় হাঁসুয়ার আঘাতে আরিফের পেটের ভুড়ি বের হয়ে গেলে স্থানীয়রা আহত সবাইকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। বাকিরা কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কুমারখালী থানার ওসি মো. আকিবুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জড়িতদের খুব দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

৪ ছাত্রলীগকর্মীকে কোপালেন বহিষ্কৃত নেতা

আপডেট সময় ০৭:১২:৫০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতির হাঁসুয়ার আঘাতে ছাত্রলীগের চার কর্মী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজনের পেটের নাড়িভুড়ি বের হয়ে গেছে।

রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুমারখালী শহিদ গোলাম কিবরিয়া সেতু এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন— পৌরসভার কাজীপাড়া গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে আরিফুল ইসলাম (২৫), বাটিকামারা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে সবুজ (২৫), বড় মালিয়াট গ্রামের খালেক আলীর ছেলে জুয়েল ও সম্রাট (২৪)।

আহত সম্রাট জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহিদ গোলাম কিবরিয়া সেতু এলাকায় চা পান করতে গেলে পৌর ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহসভাপতি পাপ্পুর নেতৃত্বে তুর্য, রামিম, আলিফসহ ৪-৫ জন এসে তাদের এলোপাতাড়ি কুপিয়ে চলে যায়। এ সময় হাঁসুয়ার আঘাতে আরিফের পেটের ভুড়ি বের হয়ে গেলে স্থানীয়রা আহত সবাইকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। বাকিরা কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কুমারখালী থানার ওসি মো. আকিবুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জড়িতদের খুব দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।