ঢাকা ০৯:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইনানকে প্রটোকল দিতে গিয়ে বহিষ্কার তিন কলেজের ৯ কর্মী

ক্যাম্পাস প্রতিনিধি:-
  • আপডেট সময় ০৪:১৫:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৮৭ বার পড়া হয়েছে

শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান। ফাইল ছবি

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানকে প্রটোকল দিতে গিয়ে সাময়িক বহিষ্কার হয়েছেন ঢাকা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ ও সরকারি বাঙলা কলেজের ৯ কর্মী। বিশৃঙ্খলায় জড়ানোয় তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে সংগঠনটির একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে এ কথা অস্বীকার করেছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সম্পাদক ইনান।

ছাত্রলীগের সূত্রগুলো বলছে, শুক্রবার রাতে দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দেওয়ার কথা ছিল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের। ওই সাক্ষাৎকার দিতে যাওয়ার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা তার সফরসঙ্গী হন। পথিমধ্যে ইনানকে প্রটোকল দেওয়া নিয়ে বিশৃঙ্খলায় জড়ান নেতাকর্মীরা।

এসময় নেতাকর্মীদের বিশৃঙ্খলায় সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে ইনান নেতাকর্মীদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলেও তাৎক্ষণিক সেটা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কলেজগুলোর ওই ৯ কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

বহিষ্কৃতদের তথ্য জানিয়ে শুক্রবার রাতেই বিবৃতিতে প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। তবে সংগঠনটির বিবৃতিতে প্রটোকল দেওয়া নিয়ে বিঙ্খলায় জড়ানোর বিষয়টি স্পষ্ট নয়। সেখানে ‘শৃঙ্খলা ও মর্যাদা পরিপন্থি কার্যকলাপে জড়ানো’র কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

সংগঠনটির দপ্তর সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম পান্থ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘‘সংগঠনের শৃঙ্খলা ও মর্যাদা পরিপন্থি কার্যকলাপে জড়ানোর অভিযোগে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে তাদের সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কেন পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তা উল্লেখ করে আগামী সাতদিনের মধ্যে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় দপ্তরে লিখিত জমা দিতে হবে।’’

সাময়িক বহিষ্কৃতদের মধ্যে তিতুমীর কলেজের ৩ কর্মী, ঢাকা কলেজের ৫ কর্মী ও বাঙলা কলেজের ১ কর্মী রয়েছেন। তিতুমীর কলেজের তিনজন হলেন- ইভান, মিশুক ও অপু। ঢাকা কলেজের পাঁচ কর্মী হলেন- শাহাদাত, সাজ্জাদ, রাশেদ, মোরশেদ ও আব্দুল্লাহ। আর সরকারি বাঙলা কলেজের রাজু নামে এক কর্মী রয়েছেন।

জানতে চাইলে মেফতাহুল ইসলাম পান্থ বলেন, সাময়িক বহিষ্কৃতরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের নির্দেশনা অমান্য করেছেন।

তিতুমীর কলেজের তিন কর্মীর বহিষ্কারের বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মোড়ল বলেন, শুনেছি একটি বেসরকারি টেলিভিশনে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সম্পাদক ইনান সাক্ষাৎকার দিতে গিয়েছিলেন। সেখানে আমাদের কর্মীরাও ছিলেন। যাওয়ার পথে কোনো একটা ঝামেলাকে কেন্দ্র করে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। বিষয়টি আমরাও পরিষ্কার জানা নেই।

জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন, সাংগঠনিক শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজে জড়ানোর অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনেরও সুযোগ রয়েছে। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে দেওয়া কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিলে তখন সে জবাবের প্রেক্ষিতে তাদের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

তবে ঠিক কি কারণে তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? জানতে চাইলে ইনান গণমাধ্যমকে বলেন, তারা কিছু সমস্যা সৃষ্টি করেছেন। প্রটোকলের বিষয়টি ইনানের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, এ ধরনের কোনো বিষয় ছিলো না। এটা ভুয়া কথা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ইনানকে প্রটোকল দিতে গিয়ে বহিষ্কার তিন কলেজের ৯ কর্মী

আপডেট সময় ০৪:১৫:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানকে প্রটোকল দিতে গিয়ে সাময়িক বহিষ্কার হয়েছেন ঢাকা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ ও সরকারি বাঙলা কলেজের ৯ কর্মী। বিশৃঙ্খলায় জড়ানোয় তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে সংগঠনটির একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে এ কথা অস্বীকার করেছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সম্পাদক ইনান।

ছাত্রলীগের সূত্রগুলো বলছে, শুক্রবার রাতে দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দেওয়ার কথা ছিল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের। ওই সাক্ষাৎকার দিতে যাওয়ার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা তার সফরসঙ্গী হন। পথিমধ্যে ইনানকে প্রটোকল দেওয়া নিয়ে বিশৃঙ্খলায় জড়ান নেতাকর্মীরা।

এসময় নেতাকর্মীদের বিশৃঙ্খলায় সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে ইনান নেতাকর্মীদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলেও তাৎক্ষণিক সেটা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কলেজগুলোর ওই ৯ কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

বহিষ্কৃতদের তথ্য জানিয়ে শুক্রবার রাতেই বিবৃতিতে প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। তবে সংগঠনটির বিবৃতিতে প্রটোকল দেওয়া নিয়ে বিঙ্খলায় জড়ানোর বিষয়টি স্পষ্ট নয়। সেখানে ‘শৃঙ্খলা ও মর্যাদা পরিপন্থি কার্যকলাপে জড়ানো’র কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

সংগঠনটির দপ্তর সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম পান্থ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘‘সংগঠনের শৃঙ্খলা ও মর্যাদা পরিপন্থি কার্যকলাপে জড়ানোর অভিযোগে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে তাদের সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কেন পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তা উল্লেখ করে আগামী সাতদিনের মধ্যে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় দপ্তরে লিখিত জমা দিতে হবে।’’

সাময়িক বহিষ্কৃতদের মধ্যে তিতুমীর কলেজের ৩ কর্মী, ঢাকা কলেজের ৫ কর্মী ও বাঙলা কলেজের ১ কর্মী রয়েছেন। তিতুমীর কলেজের তিনজন হলেন- ইভান, মিশুক ও অপু। ঢাকা কলেজের পাঁচ কর্মী হলেন- শাহাদাত, সাজ্জাদ, রাশেদ, মোরশেদ ও আব্দুল্লাহ। আর সরকারি বাঙলা কলেজের রাজু নামে এক কর্মী রয়েছেন।

জানতে চাইলে মেফতাহুল ইসলাম পান্থ বলেন, সাময়িক বহিষ্কৃতরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের নির্দেশনা অমান্য করেছেন।

তিতুমীর কলেজের তিন কর্মীর বহিষ্কারের বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মোড়ল বলেন, শুনেছি একটি বেসরকারি টেলিভিশনে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সম্পাদক ইনান সাক্ষাৎকার দিতে গিয়েছিলেন। সেখানে আমাদের কর্মীরাও ছিলেন। যাওয়ার পথে কোনো একটা ঝামেলাকে কেন্দ্র করে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। বিষয়টি আমরাও পরিষ্কার জানা নেই।

জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন, সাংগঠনিক শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজে জড়ানোর অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনেরও সুযোগ রয়েছে। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে দেওয়া কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিলে তখন সে জবাবের প্রেক্ষিতে তাদের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

তবে ঠিক কি কারণে তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? জানতে চাইলে ইনান গণমাধ্যমকে বলেন, তারা কিছু সমস্যা সৃষ্টি করেছেন। প্রটোকলের বিষয়টি ইনানের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, এ ধরনের কোনো বিষয় ছিলো না। এটা ভুয়া কথা।