ঢাকা ০২:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদের দিন ইসরায়েলি হামলায় ৩ ছেলেকে হারালেন হামাস প্রধান হানিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ১০:২০:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৩৫০ বার পড়া হয়েছে

হামাসের শীর্ষ নেতা ইসমাইল হানিয়া। ছবি: সংগৃহীত

ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠী হামাস আন্দোলনের রাজনৈতিক ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়ার তিন পুত্র ও তিন নাতি-নাতনি আজ ঈদের দিন গাজার এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার পথে ইসরায়েলী বিমান হামলায় শহীদ হয়েছেন।

হামলায় নাতি-নাতনিসহ কয়েক ডজন আত্মীয়কেও হারিয়েছেন হামাস প্রধান। তার নিহত তিন সন্তানের নাম- হাজেম, আমির ও মোহাম্মদ। আল জাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হানিয়া তার সন্তানদের হারানোর কথা তুলে ধরেছেন।

নিহত তিন সন্তান- হাজেম, আমির ও মোহাম্মদ।

হামাস নেতা বলেন, শহীদদের রক্ত এবং আহতদের বেদনা দিয়ে আমরা আশা তৈরি করি, আমরা ভবিষ্যত তৈরি করি, আমরা আমাদের জনগণ এবং আমাদের জাতির জন্য স্বাধীনতা এবং স্বাধীনতা তৈরি করি।

গাজা সিটির শাতি শরণার্থী শিবিরের কাছে মারাত্মক হামলায় হাজেম, আমির ও মোহাম্মদসহ হানিয়া পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্য নিহত হন।

কাতার থেকে হানিয়া বলেন, স্রষ্ঠা আমার তিন সন্তান ও কয়েকজন নাতি-নাতনির শহীদ হাওয়ার যে সম্মান দিয়েছেন, তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। আমার ছেলেদের শহীদের সম্মান দেওয়া হয়েছে। তারা গাজায় আমাদের ফিলিস্তিনি জনগণের সঙ্গেই রয়ে গেছে। তারা চলে যায়নি এবং পালিয়েও যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ঈদের দিন ইসরায়েলি হামলায় ৩ ছেলেকে হারালেন হামাস প্রধান হানিয়া

আপডেট সময় ১০:২০:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪

ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠী হামাস আন্দোলনের রাজনৈতিক ব্যুরোর প্রধান ইসমাইল হানিয়ার তিন পুত্র ও তিন নাতি-নাতনি আজ ঈদের দিন গাজার এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার পথে ইসরায়েলী বিমান হামলায় শহীদ হয়েছেন।

হামলায় নাতি-নাতনিসহ কয়েক ডজন আত্মীয়কেও হারিয়েছেন হামাস প্রধান। তার নিহত তিন সন্তানের নাম- হাজেম, আমির ও মোহাম্মদ। আল জাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হানিয়া তার সন্তানদের হারানোর কথা তুলে ধরেছেন।

নিহত তিন সন্তান- হাজেম, আমির ও মোহাম্মদ।

হামাস নেতা বলেন, শহীদদের রক্ত এবং আহতদের বেদনা দিয়ে আমরা আশা তৈরি করি, আমরা ভবিষ্যত তৈরি করি, আমরা আমাদের জনগণ এবং আমাদের জাতির জন্য স্বাধীনতা এবং স্বাধীনতা তৈরি করি।

গাজা সিটির শাতি শরণার্থী শিবিরের কাছে মারাত্মক হামলায় হাজেম, আমির ও মোহাম্মদসহ হানিয়া পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্য নিহত হন।

কাতার থেকে হানিয়া বলেন, স্রষ্ঠা আমার তিন সন্তান ও কয়েকজন নাতি-নাতনির শহীদ হাওয়ার যে সম্মান দিয়েছেন, তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। আমার ছেলেদের শহীদের সম্মান দেওয়া হয়েছে। তারা গাজায় আমাদের ফিলিস্তিনি জনগণের সঙ্গেই রয়ে গেছে। তারা চলে যায়নি এবং পালিয়েও যায়নি।