ঢাকা ০১:২৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তির দাবিতে

নয়াপল্টনে বিএনপি’র সমাবেশে জনতার ঢল!

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৩:০১:০৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০২৩
  • / ১২৩ বার পড়া হয়েছে

নয়া পল্টন থেকে

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির জনসমাবেশ শুরু হয়েছে। বুধবার (১৮ অক্টোবর) দুপুর দুইটায় আনুষ্ঠানিকভাবে কোরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে সমাবেশ শুরু হয়।

সমাবেশে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক মো. আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব মো. আমিনুল হক ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব লিটন মাহমুদের পরিচালনায় অন্যান্য নেতারা উপস্থিত আছেন।

সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তির দাবিতে এই জনসমাবেশ শুরু হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, সমাবেশকে ঘিরে সকাল ১০টা থেকেই নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে নয়াপল্টনে আসতে থাকেন। বেলা সাড়ে ১১টার মধ্যেই নয়াপল্টন, বিজয়নগর, ফকিরাপুল, শান্তিনগর, কাকরাইল এলাকা পূর্ণ হতে থাকে। সময় যত যাচ্ছে ভিড় ততই বাড়ছে।

সরকারের পদত্যাগ, তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা, খালেদা জিয়ার মুক্তি ইত্যাদি লেখা ব্যানার বহন করে দলীয় কর্মীরা রাস্তায় রাস্তায়, মোড়ে মোড়ে এমনকি এসব এলাকার আশপাশের অলিগলিতে মিছিল করছে।

জানা গেছে, নয়াপল্টনে আজকের জনসমাবেশটি মহাসমাবেশের আদলে অনুষ্ঠিত হবে। বিপুল উপস্থিতি ঘটিয়ে সমাবেশ সফল করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিএনপি। প্রস্তুতির অংশ হিসেবে কয়েকদিন ধরে ঢাকায় মহিলা সমাবেশ, কৃষক সমাবেশ, যুবসমাবেশ, শ্রমিক কনভেনশন, ছাত্র কনভেনশনের মতো সিরিজ কর্মসূচি করেছে দলটি। জনসমাবেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথি থাকবেন।

সেখান থেকে শারদীয় দুর্গাপূজার মধ্যে সরকারকে পদত্যাগ করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার আহ্বান জানানো হবে। না হলে আগামী ২৮ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশের ঘোষণা দেবে বিএনপি। এর মধ্য দিয়ে সরকার পতনের চূড়ান্ত ধাপের আন্দোলন শুরু হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত যা চলমান থাকবে।

যুগপৎ আন্দোলনের শরিকরাও তাদের নিজস্ব সমাবেশ থেকে পৃথকভাবে এই কর্মসূচি ঘোষণা করবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তির দাবিতে

নয়াপল্টনে বিএনপি’র সমাবেশে জনতার ঢল!

আপডেট সময় ০৩:০১:০৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০২৩

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির জনসমাবেশ শুরু হয়েছে। বুধবার (১৮ অক্টোবর) দুপুর দুইটায় আনুষ্ঠানিকভাবে কোরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে সমাবেশ শুরু হয়।

সমাবেশে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক মো. আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব মো. আমিনুল হক ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব লিটন মাহমুদের পরিচালনায় অন্যান্য নেতারা উপস্থিত আছেন।

সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তির দাবিতে এই জনসমাবেশ শুরু হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, সমাবেশকে ঘিরে সকাল ১০টা থেকেই নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে নয়াপল্টনে আসতে থাকেন। বেলা সাড়ে ১১টার মধ্যেই নয়াপল্টন, বিজয়নগর, ফকিরাপুল, শান্তিনগর, কাকরাইল এলাকা পূর্ণ হতে থাকে। সময় যত যাচ্ছে ভিড় ততই বাড়ছে।

সরকারের পদত্যাগ, তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা, খালেদা জিয়ার মুক্তি ইত্যাদি লেখা ব্যানার বহন করে দলীয় কর্মীরা রাস্তায় রাস্তায়, মোড়ে মোড়ে এমনকি এসব এলাকার আশপাশের অলিগলিতে মিছিল করছে।

জানা গেছে, নয়াপল্টনে আজকের জনসমাবেশটি মহাসমাবেশের আদলে অনুষ্ঠিত হবে। বিপুল উপস্থিতি ঘটিয়ে সমাবেশ সফল করতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিএনপি। প্রস্তুতির অংশ হিসেবে কয়েকদিন ধরে ঢাকায় মহিলা সমাবেশ, কৃষক সমাবেশ, যুবসমাবেশ, শ্রমিক কনভেনশন, ছাত্র কনভেনশনের মতো সিরিজ কর্মসূচি করেছে দলটি। জনসমাবেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথি থাকবেন।

সেখান থেকে শারদীয় দুর্গাপূজার মধ্যে সরকারকে পদত্যাগ করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার আহ্বান জানানো হবে। না হলে আগামী ২৮ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশের ঘোষণা দেবে বিএনপি। এর মধ্য দিয়ে সরকার পতনের চূড়ান্ত ধাপের আন্দোলন শুরু হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত যা চলমান থাকবে।

যুগপৎ আন্দোলনের শরিকরাও তাদের নিজস্ব সমাবেশ থেকে পৃথকভাবে এই কর্মসূচি ঘোষণা করবে।