ঢাকা ০৮:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুক্তি পেলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৯:৫১:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ নভেম্বর ২০২৩
  • / ১০১ বার পড়া হয়েছে

জয়যাত্রা টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীর জামিনে মুক্ত হয়েছেন।
প্রতারণা ও চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেফতারের ১৩ দিন পর বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পান।

কাশিমপুর মহিলা কারাগারের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সুপার শাহজাহান মিয়া বলেন, বুধবার বিকেলে হেলেনা জাহাঙ্গীরের জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। রাতে তার জামিনের কাগজপত্র আদালত থেকে কারাগারে পৌঁছে। পরে যাচাই-বাছাই শেষে আজ বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১১টায় তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়।

জানা গেছে, ২০২১ সালের ২৯ জুলাই রাতে ঢাকার গুলশানে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে চারটি মামলা করা হয়। সেসব মামলায় তাকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করে পুলিশ। ওই বছরের নভেম্বরে কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি।

২০২১ সালের ২ আগস্ট তার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় একটি প্রতারণার মামলা করেন সাংবাদিক আব্দুর রহমান তুহিন। তদন্ত শেষে ২০২১ সালের ২৯ ডিসেম্বর হেলেনা জাহাঙ্গীরসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলার অভিযোগ দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক শাহিনুর ইসলাম। আদালত ২০২২ সালের ১৮ এপ্রিল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। বিচার চলাকালীন আদালত ২৬ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৩ জনের সাক্ষ্য নেন। ২০ মার্চ এ মামলায় আদালত হেলেনাসহ টিভির জেনারেল ম্যানেজার হাজেরা খাতুন, প্রধান বার্তা সম্পাদক কামরুজ্জামান আরিফ, কো-অর্ডিনেটর সানাউল্ল্যাহ নূরী, স্টাফ রিপোর্টার মাহফুজ শাহরিয়ারকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দেন। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের প্রত্যেকের দুই হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড অনাদায়ে তাদের আরো দুই মাসের করে সাজা দেয়া হয়। রায়ের দিন উপস্থিত না থাকায় আদালত হেলেনার বিরুদ্ধে সাজাসহ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

গত ২ নভেম্বর ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেনের আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়। ওই দিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাকে ঢাকা থেকে গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে তাকে রাইটার হিসেবে কাজ দেয়া হয়।

হেলেনার আইনজীবী ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আসাদুজ্জামানের আদালতে আপিলের শর্তে জামিন চেয়ে ২ নভেম্বর আবেদন করেন। পরে বিচারক বুধবার (১৫ নভেম্বর) শুনানির জন্য তারিখ রেখেছিলেন। শুনানি শেষে বুধবার বিকেলে হেলেনা জাহাঙ্গীরের জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক।

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরকে জামিন দেয়ার তথ্যটি জানিয়েছেন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত কৌঁসুলি তাপস কুমার পাল।

নিউজটি শেয়ার করুন

মুক্তি পেলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

আপডেট সময় ০৯:৫১:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ নভেম্বর ২০২৩

জয়যাত্রা টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীর জামিনে মুক্ত হয়েছেন।
প্রতারণা ও চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেফতারের ১৩ দিন পর বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পান।

কাশিমপুর মহিলা কারাগারের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সুপার শাহজাহান মিয়া বলেন, বুধবার বিকেলে হেলেনা জাহাঙ্গীরের জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। রাতে তার জামিনের কাগজপত্র আদালত থেকে কারাগারে পৌঁছে। পরে যাচাই-বাছাই শেষে আজ বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১১টায় তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়।

জানা গেছে, ২০২১ সালের ২৯ জুলাই রাতে ঢাকার গুলশানে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে চারটি মামলা করা হয়। সেসব মামলায় তাকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করে পুলিশ। ওই বছরের নভেম্বরে কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি।

২০২১ সালের ২ আগস্ট তার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় একটি প্রতারণার মামলা করেন সাংবাদিক আব্দুর রহমান তুহিন। তদন্ত শেষে ২০২১ সালের ২৯ ডিসেম্বর হেলেনা জাহাঙ্গীরসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলার অভিযোগ দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক শাহিনুর ইসলাম। আদালত ২০২২ সালের ১৮ এপ্রিল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। বিচার চলাকালীন আদালত ২৬ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৩ জনের সাক্ষ্য নেন। ২০ মার্চ এ মামলায় আদালত হেলেনাসহ টিভির জেনারেল ম্যানেজার হাজেরা খাতুন, প্রধান বার্তা সম্পাদক কামরুজ্জামান আরিফ, কো-অর্ডিনেটর সানাউল্ল্যাহ নূরী, স্টাফ রিপোর্টার মাহফুজ শাহরিয়ারকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দেন। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের প্রত্যেকের দুই হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড অনাদায়ে তাদের আরো দুই মাসের করে সাজা দেয়া হয়। রায়ের দিন উপস্থিত না থাকায় আদালত হেলেনার বিরুদ্ধে সাজাসহ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

গত ২ নভেম্বর ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেনের আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়। ওই দিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাকে ঢাকা থেকে গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে তাকে রাইটার হিসেবে কাজ দেয়া হয়।

হেলেনার আইনজীবী ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আসাদুজ্জামানের আদালতে আপিলের শর্তে জামিন চেয়ে ২ নভেম্বর আবেদন করেন। পরে বিচারক বুধবার (১৫ নভেম্বর) শুনানির জন্য তারিখ রেখেছিলেন। শুনানি শেষে বুধবার বিকেলে হেলেনা জাহাঙ্গীরের জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক।

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরকে জামিন দেয়ার তথ্যটি জানিয়েছেন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত কৌঁসুলি তাপস কুমার পাল।