ঢাকা ১২:২৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাপানে সুনামির আঘাত, ৯০ মিনিটে কেঁপে উঠল ২১ বার

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৬:০০:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৯ বার পড়া হয়েছে

বড় মাত্রার বেশ কয়েকটি এবং ছোট ছোট অনেকগুলো ভূমিকম্পের জেরে সুনামি বা সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস শুরু হয়েছে জাপানে। দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় মূল দ্বীপ হোনশু’র তোয়ামা জেলার প্রধান শহর তোয়ামা সিটিতে ইতোমধ্যে আঘাত হেনেছে সুনামির ঢেউ।

মাত্র ৯০ মিনিটের মধ্যে পরপর ২১টি ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে, যেগুলোর মাত্রা ছিল ৪ অথবা তার বেশি। সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৬।

জানা গেছে, ভয়াবহ এ প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এরই মধ্যে মধ্য জাপানের সাড়ে ৩৩ হাজার পরিবার বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। ইউটিলিটি কোম্পানিগুলো বলছে, জাপানের প্রধান দ্বীপ হোনশুর পাশে জাপান সাগর তীরবর্তী তৈয়ামা, ইশিকাওয়া ও নিগাতা অঞ্চলগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জাপানের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ইতোমধ্যে সুনামির ঢেউয়ের একটি ভিডিওচিত্র ভাইরাল হয়েছে। সমুদ্র উপকূলবর্তী নিচু এলাকাগুলোতে বসবাসকারী জনগণকে নিরাপদ ও উঁচু স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশনাও দিয়েছে দেশটির আবহওয়া দপ্তর।

হোনশু’র অপর জেলা ইশিকাওয়ার ওয়াজিমা বন্দরে ইতোমধ্যে ১ দশমিক ২ মিটার (৩ ফুটেরও বেশি) উঁচু জলোচ্ছ্বাস শুরু ‍হয়েছে বলে জানা গেছে। ভূমিকম্পের এপিসেন্টারও এই ইশিকাওয়া জেলায়।

মার্কিন ভূতত্ত্ব জরিপ সংস্থা ইউএস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সোমবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৬ মিনিটে প্রথম ভূমিকম্পটি আঘাত করে ইশিকাওয়ায়। সেটির মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ২।

তারপর ৫ থেকে ১০ মিনিট অন্তর অন্তর মোট ২১টি ভূমিকম্প হয়েছে জাপানে। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ছোটোটির মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬ এবং সবচেয়ে বড়টির ৭ দশমিক ৫।

নিউজটি শেয়ার করুন

জাপানে সুনামির আঘাত, ৯০ মিনিটে কেঁপে উঠল ২১ বার

আপডেট সময় ০৬:০০:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জানুয়ারী ২০২৪

বড় মাত্রার বেশ কয়েকটি এবং ছোট ছোট অনেকগুলো ভূমিকম্পের জেরে সুনামি বা সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস শুরু হয়েছে জাপানে। দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় মূল দ্বীপ হোনশু’র তোয়ামা জেলার প্রধান শহর তোয়ামা সিটিতে ইতোমধ্যে আঘাত হেনেছে সুনামির ঢেউ।

মাত্র ৯০ মিনিটের মধ্যে পরপর ২১টি ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে, যেগুলোর মাত্রা ছিল ৪ অথবা তার বেশি। সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৬।

জানা গেছে, ভয়াবহ এ প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এরই মধ্যে মধ্য জাপানের সাড়ে ৩৩ হাজার পরিবার বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। ইউটিলিটি কোম্পানিগুলো বলছে, জাপানের প্রধান দ্বীপ হোনশুর পাশে জাপান সাগর তীরবর্তী তৈয়ামা, ইশিকাওয়া ও নিগাতা অঞ্চলগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জাপানের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ইতোমধ্যে সুনামির ঢেউয়ের একটি ভিডিওচিত্র ভাইরাল হয়েছে। সমুদ্র উপকূলবর্তী নিচু এলাকাগুলোতে বসবাসকারী জনগণকে নিরাপদ ও উঁচু স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশনাও দিয়েছে দেশটির আবহওয়া দপ্তর।

হোনশু’র অপর জেলা ইশিকাওয়ার ওয়াজিমা বন্দরে ইতোমধ্যে ১ দশমিক ২ মিটার (৩ ফুটেরও বেশি) উঁচু জলোচ্ছ্বাস শুরু ‍হয়েছে বলে জানা গেছে। ভূমিকম্পের এপিসেন্টারও এই ইশিকাওয়া জেলায়।

মার্কিন ভূতত্ত্ব জরিপ সংস্থা ইউএস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সোমবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৬ মিনিটে প্রথম ভূমিকম্পটি আঘাত করে ইশিকাওয়ায়। সেটির মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ২।

তারপর ৫ থেকে ১০ মিনিট অন্তর অন্তর মোট ২১টি ভূমিকম্প হয়েছে জাপানে। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ছোটোটির মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬ এবং সবচেয়ে বড়টির ৭ দশমিক ৫।