ঢাকা ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাদারীপুরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর দায়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৬:১০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৬ বার পড়া হয়েছে

মাদারীপুরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর দায়ে ভাটা মালিককে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) বিকেলে সদর উপজেলার পাঁচখোলা ইউনিয়নের মহিষেরচর এলাকায় এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানের নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান।

অর্থদন্ডপ্রাপ্ত ভাটা মালিকের পক্ষে জরিমানা দেন ম্যানেজার রনি খান। তিনি সৈয়দারবালী এলাকার মনিরুজ্জামান খানের ছেলে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো হচ্ছে এমন খবরে অভিযানে যায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় সদর উপজেলার মহিষেরচর এলাকার কেএইচবি ইটভাটায় জ্বালানী হিসেবে গাছপালা পোড়ানোর বিষয়টি সত্যতা পাওয়া যায়।

কাঠ পোড়ানোর দায়ে ভাটা মালিককে নগদ তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান। পরে দণ্ডকৃত অর্থ পরিশোধ করায় সতর্ক করেন বিচারক।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পরিবেশের ক্ষতি করে ইটভাটায় কেউ কাঠ পোড়াতে পারবে না। এটা পরিবেশ অধিদপ্তরের আইন ও আদেশে বলা আছে। কাঠ পোড়ানো হচ্ছে এমন অভিযোগ আসায় কেএইচবি ইটভাটা কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছিল। তারা নিয়ম না মেনেই স্থানীয় গাছপালা কেটে ইটভাটায় জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করে আসছে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাওয়ায় তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই জরিমানার অর্থ জেলা প্রশাসনের রাজস্ব শাখায় সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দেওয়া হয়। পরে আবারও সতর্ক করা হয় ইটভাটা মালিককে। পরিবেশের স্বার্থে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

মাদারীপুরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর দায়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা

আপডেট সময় ০৬:১০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৪

মাদারীপুরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর দায়ে ভাটা মালিককে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) বিকেলে সদর উপজেলার পাঁচখোলা ইউনিয়নের মহিষেরচর এলাকায় এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানের নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান।

অর্থদন্ডপ্রাপ্ত ভাটা মালিকের পক্ষে জরিমানা দেন ম্যানেজার রনি খান। তিনি সৈয়দারবালী এলাকার মনিরুজ্জামান খানের ছেলে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো হচ্ছে এমন খবরে অভিযানে যায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় সদর উপজেলার মহিষেরচর এলাকার কেএইচবি ইটভাটায় জ্বালানী হিসেবে গাছপালা পোড়ানোর বিষয়টি সত্যতা পাওয়া যায়।

কাঠ পোড়ানোর দায়ে ভাটা মালিককে নগদ তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান। পরে দণ্ডকৃত অর্থ পরিশোধ করায় সতর্ক করেন বিচারক।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পরিবেশের ক্ষতি করে ইটভাটায় কেউ কাঠ পোড়াতে পারবে না। এটা পরিবেশ অধিদপ্তরের আইন ও আদেশে বলা আছে। কাঠ পোড়ানো হচ্ছে এমন অভিযোগ আসায় কেএইচবি ইটভাটা কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছিল। তারা নিয়ম না মেনেই স্থানীয় গাছপালা কেটে ইটভাটায় জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করে আসছে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাওয়ায় তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই জরিমানার অর্থ জেলা প্রশাসনের রাজস্ব শাখায় সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দেওয়া হয়। পরে আবারও সতর্ক করা হয় ইটভাটা মালিককে। পরিবেশের স্বার্থে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।