ঢাকা ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্রমিক সংগঠন করার বিধান সহজ করতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র : আইনমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০৭:৫১:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ৯৪ বার পড়া হয়েছে

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক্ব

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কলকারখানাগুলোতে শ্রমিক সংগঠন করার বিধান আরও সহজ করতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাসের দুই প্রতিনিধির সঙ্গে শ্রমিক অধিকার নিয়ে কথা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী জানিয়েছেন, গার্মেন্টস কারখানায় শ্রমিক সংগঠন করার ক্ষেত্রে ১০ ভাগ শ্রমিকের সম্মতির বিধান চায় যুক্তরাষ্ট্র। রোববার সচিবালয়ে মার্কিন দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারি ম্যাথিউ বে ও লেবার অ্যাটাচে লীনা খানের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ কথা জানান আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, আজকের আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল রাষ্ট্রপতির কাছে যখন শ্রম আইনটি গিয়েছিল, তখন একটি বিশেষ কারণে সেটি ফিরিয়ে দেয়া হয়েছিল। কারণটা আগেও আমি ব্যাখ্যা করেছি, আজকের আলোচনায় সেটিও উঠে এসেছে।

ঢাকায় সচিবালয়ে মার্কিন দূতাবাসের লেবার অ্যাটাচে লীনা খান ও ফার্স্ট সেক্রেটারি (রাজনৈতিক) ম্যাথিউ বে মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন।

মন্ত্রী বলেন, আমি তাদেরকে (দূতাবাসের প্রতিনিধি) বলেছি- নতুন শ্রম আইনে কোনো গার্মেন্টস বা শিল্প কারখানায় ৩ হাজারের বেশি শ্রমিক থাকলে সেখানে সংগঠন করতে হলে শতকরা ১৫ ভাগ শ্রমিকের সম্মতি প্রয়োজন হবে। যুক্তরাষ্ট্র ১০ ভাগ বললেও এক্ষেত্রে সরকার ধীরে ধীরে ব্যবস্থা নেবে। কারখানা মালিকদের সম্মতিরও প্রয়োজন রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

শ্রমিক সংগঠন করার বিধান সহজ করতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র : আইনমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৭:৫১:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২৪

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কলকারখানাগুলোতে শ্রমিক সংগঠন করার বিধান আরও সহজ করতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাসের দুই প্রতিনিধির সঙ্গে শ্রমিক অধিকার নিয়ে কথা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী জানিয়েছেন, গার্মেন্টস কারখানায় শ্রমিক সংগঠন করার ক্ষেত্রে ১০ ভাগ শ্রমিকের সম্মতির বিধান চায় যুক্তরাষ্ট্র। রোববার সচিবালয়ে মার্কিন দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারি ম্যাথিউ বে ও লেবার অ্যাটাচে লীনা খানের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ কথা জানান আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, আজকের আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল রাষ্ট্রপতির কাছে যখন শ্রম আইনটি গিয়েছিল, তখন একটি বিশেষ কারণে সেটি ফিরিয়ে দেয়া হয়েছিল। কারণটা আগেও আমি ব্যাখ্যা করেছি, আজকের আলোচনায় সেটিও উঠে এসেছে।

ঢাকায় সচিবালয়ে মার্কিন দূতাবাসের লেবার অ্যাটাচে লীনা খান ও ফার্স্ট সেক্রেটারি (রাজনৈতিক) ম্যাথিউ বে মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন।

মন্ত্রী বলেন, আমি তাদেরকে (দূতাবাসের প্রতিনিধি) বলেছি- নতুন শ্রম আইনে কোনো গার্মেন্টস বা শিল্প কারখানায় ৩ হাজারের বেশি শ্রমিক থাকলে সেখানে সংগঠন করতে হলে শতকরা ১৫ ভাগ শ্রমিকের সম্মতি প্রয়োজন হবে। যুক্তরাষ্ট্র ১০ ভাগ বললেও এক্ষেত্রে সরকার ধীরে ধীরে ব্যবস্থা নেবে। কারখানা মালিকদের সম্মতিরও প্রয়োজন রয়েছে।