ঢাকা ০৬:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন

যৌন হয়রানির অভিযোগে ভিকারুননিসার সেই শিক্ষক বরখাস্ত

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:১৩:০৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৯৯ বার পড়া হয়েছে

শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানির অভিযোগের পর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুরের দিবা শাখার এক জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে প্রত্যাহার করে অধ্যক্ষের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

গণিতের শিক্ষক মোহাম্মদ মুরাদ হোসেন সরকারের বিরুদ্ধে গত ৭ ফেব্রুয়ারি কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে কোচিংয়ে ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ করা হয়।

শনিবার কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়েছে, “আপনার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রাথমিকভাবে সত্যতা পাওয়া গেছে।

“শিক্ষার পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে এবং এ বিষয়ে বিধি অনুযায়ী আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করার লক্ষ্যে আপনাকে ২৪/০২/২৪ তারিখ থেকে অধ্যক্ষ কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হল।“ এদিকে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চেয়ে রোববার বেলা ১১টায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুর ক্যাম্পাসের সামনে মানববন্ধন ডেকেছেন শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা।

অফিস আদেশের বিষয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক তাহমিনা আখতার গণমাধ্যমকে  বলেন, ‘‘অফিস বোর্ডে এ নিয়ে নোটিস টানানো দেখেছি। তবে এটা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। এই শিক্ষককে অবশ্যেই স্কুল থেকে বের করে দিতে হবে। এর বিচার করতে হবে।”

ভুক্তভোগী ছাত্রীদের অভিভাবকদের দেওয়া তথ্যের বরাতে অন্য অভিভাবকরা বলছেন, আজিমপুর এলাকার একটি ভবনের তিন তলার ফ্ল্যাটে কোচিং সেন্টার খুলে পড়ান মুরাদ হোসেন সরকার।

অভিভাবকদের অভিযোগ, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক তৈরি করে এই কোচিংয়েই একাধিক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি করে আসছিলেন তিনি।

লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরী আইসিটি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মমতাজ বেগমকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

বৃহস্পতিবার তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পায় কলেজ কর্তৃপক্ষ বলে এ ঘটনায় সোচ্চার এক অভিভাবক জানান, যিনি নাম প্রকাশ করতে চাননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মানববন্ধন

যৌন হয়রানির অভিযোগে ভিকারুননিসার সেই শিক্ষক বরখাস্ত

আপডেট সময় ১১:১৩:০৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানির অভিযোগের পর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুরের দিবা শাখার এক জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে প্রত্যাহার করে অধ্যক্ষের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

গণিতের শিক্ষক মোহাম্মদ মুরাদ হোসেন সরকারের বিরুদ্ধে গত ৭ ফেব্রুয়ারি কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে কোচিংয়ে ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ করা হয়।

শনিবার কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়েছে, “আপনার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রাথমিকভাবে সত্যতা পাওয়া গেছে।

“শিক্ষার পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে এবং এ বিষয়ে বিধি অনুযায়ী আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করার লক্ষ্যে আপনাকে ২৪/০২/২৪ তারিখ থেকে অধ্যক্ষ কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হল।“ এদিকে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চেয়ে রোববার বেলা ১১টায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুর ক্যাম্পাসের সামনে মানববন্ধন ডেকেছেন শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা।

অফিস আদেশের বিষয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক তাহমিনা আখতার গণমাধ্যমকে  বলেন, ‘‘অফিস বোর্ডে এ নিয়ে নোটিস টানানো দেখেছি। তবে এটা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। এই শিক্ষককে অবশ্যেই স্কুল থেকে বের করে দিতে হবে। এর বিচার করতে হবে।”

ভুক্তভোগী ছাত্রীদের অভিভাবকদের দেওয়া তথ্যের বরাতে অন্য অভিভাবকরা বলছেন, আজিমপুর এলাকার একটি ভবনের তিন তলার ফ্ল্যাটে কোচিং সেন্টার খুলে পড়ান মুরাদ হোসেন সরকার।

অভিভাবকদের অভিযোগ, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক তৈরি করে এই কোচিংয়েই একাধিক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি করে আসছিলেন তিনি।

লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরী আইসিটি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মমতাজ বেগমকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

বৃহস্পতিবার তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পায় কলেজ কর্তৃপক্ষ বলে এ ঘটনায় সোচ্চার এক অভিভাবক জানান, যিনি নাম প্রকাশ করতে চাননি।