ঢাকা ০২:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
মামলার বেড়াজালে হাজার হাজার নেতাকর্মী ঘরছাড়া

১৫ বছরে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ লাখ ৪২ হাজার ৮২৫ মামলা, গ্রেপ্তার ৫ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৫

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ১২:৫৯:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৯৯ বার পড়া হয়েছে

মামলার জালে বন্দি বিএনপি ও এর অঙ্গ-সংগঠনের নেতারা। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে হাজার হাজার মামলা দায়ের হয়েছে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। মামলার বেড়াজালে হাজার হাজার নেতাকর্মী ঘরছাড়া। অনেক আবার রয়েছে আত্মগোপনে। গত ১৫ বছরে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ লাখ ৪২ হাজার ৮২৫টির বেশি মামলা হয়েছে বলে বিএনপি’র দপ্তর সূত্র জানিয়েছে। এসব মামলায় আসামির সংখ্যা ৫০ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৫ জনের বেশি।

এদিকে ২৮শে অক্টোবর ঢাকায় সমাবেশ ও সংঘাতের পর থেকে ব্যাপক গ্রেপ্তার ও মামলায় জর্জরিত এখন বিএনপি। প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিএনপির নেতা-কর্মীদের আটক করছে পুলিশ। এমন প্রেক্ষাপটে সারাদেশে বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে গ্রেপ্তার আতঙ্ক কাজ করছে। ঢাকায় পুলিশ হত্যা ও নাশকতা মামলা এবং পরবর্তীকালে অবরোধ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মামলা হওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা বাড়িঘর ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছেন।

সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮শে অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত দেশের ১০টি বিভাগে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ হাজার ৬৪৫টির বেশি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ২৫ হাজার ৭১১ জনকে। আবার প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন জেলায় নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি গ্রেপ্তার রয়েছে রাজশাহী বিভাগে। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৫ জন নেতাকর্মীকে।

এরপরেই রয়েছে ঢাকা বিভাগ। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৬৪৮ জন নেতাকর্মীকে। তারপরে রয়েছে খুলনা বিভাগ। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৫ জনকে। এই নেতাকর্মীদের অনেকে এখনো কারাবন্দি। নির্বাচনের পর কিছু নেতাকর্মীর জামিন হচ্ছে। এছাড়া এসময়ে কারাগারে ১৫ জন নেতাকর্মী মারা যাওয়ার অভিযোগও করেছে দলটি।

মামলা ও গ্রেপ্তার: রাজশাহী বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ২৫৩টি, এসব মামলা এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৫ জন নেতাকর্মীকে। চট্টগ্রাম বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ২০৪টি, এসব মামলা এই বিভাগ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ২০৫ জনকে।

কুমিল্লা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১২১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৩১৯ জনকে। রংপুর বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৩৭টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৮৯৩ জনকে।

ঢাকা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ৪১২টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৬৪৮ জন নেতাকর্মীকে। ফরিদপুর বিভাগে মামলা রয়েছে ৩৭টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৭০৫ জনকে। ময়মনসিংহ বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১১১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ২ হাজার ৩৮৪ জন নেতাকর্মীকে।

বরিশাল বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ৭৪টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৭৪৮ জনকে। খুলনা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৪১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৫ জনকে এবং সিলেট বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৫৫টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৩৭৯ জনকে।

বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি’র ওপর চালানো হয় ক্র্যাকডাউন। মিথ্যা মামলায় আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়। বর্তমান সরকার জোর করে ক্ষমতায় থাকার জন্য নির্বাচনের আগে বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন ও অত্যাচার চালিয়েছে এবং এখনো চালাচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

মামলার বেড়াজালে হাজার হাজার নেতাকর্মী ঘরছাড়া

১৫ বছরে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ লাখ ৪২ হাজার ৮২৫ মামলা, গ্রেপ্তার ৫ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৫

আপডেট সময় ১২:৫৯:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মামলার জালে বন্দি বিএনপি ও এর অঙ্গ-সংগঠনের নেতারা। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে হাজার হাজার মামলা দায়ের হয়েছে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। মামলার বেড়াজালে হাজার হাজার নেতাকর্মী ঘরছাড়া। অনেক আবার রয়েছে আত্মগোপনে। গত ১৫ বছরে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ লাখ ৪২ হাজার ৮২৫টির বেশি মামলা হয়েছে বলে বিএনপি’র দপ্তর সূত্র জানিয়েছে। এসব মামলায় আসামির সংখ্যা ৫০ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৫ জনের বেশি।

এদিকে ২৮শে অক্টোবর ঢাকায় সমাবেশ ও সংঘাতের পর থেকে ব্যাপক গ্রেপ্তার ও মামলায় জর্জরিত এখন বিএনপি। প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিএনপির নেতা-কর্মীদের আটক করছে পুলিশ। এমন প্রেক্ষাপটে সারাদেশে বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে গ্রেপ্তার আতঙ্ক কাজ করছে। ঢাকায় পুলিশ হত্যা ও নাশকতা মামলা এবং পরবর্তীকালে অবরোধ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মামলা হওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা বাড়িঘর ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছেন।

সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮শে অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত দেশের ১০টি বিভাগে দলটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১ হাজার ৬৪৫টির বেশি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ২৫ হাজার ৭১১ জনকে। আবার প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন জেলায় নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি গ্রেপ্তার রয়েছে রাজশাহী বিভাগে। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৫ জন নেতাকর্মীকে।

এরপরেই রয়েছে ঢাকা বিভাগ। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৬৪৮ জন নেতাকর্মীকে। তারপরে রয়েছে খুলনা বিভাগ। এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৫ জনকে। এই নেতাকর্মীদের অনেকে এখনো কারাবন্দি। নির্বাচনের পর কিছু নেতাকর্মীর জামিন হচ্ছে। এছাড়া এসময়ে কারাগারে ১৫ জন নেতাকর্মী মারা যাওয়ার অভিযোগও করেছে দলটি।

মামলা ও গ্রেপ্তার: রাজশাহী বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ২৫৩টি, এসব মামলা এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৫ জন নেতাকর্মীকে। চট্টগ্রাম বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ২০৪টি, এসব মামলা এই বিভাগ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ২০৫ জনকে।

কুমিল্লা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১২১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৩১৯ জনকে। রংপুর বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৩৭টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৮৯৩ জনকে।

ঢাকা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ৪১২টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৬৪৮ জন নেতাকর্মীকে। ফরিদপুর বিভাগে মামলা রয়েছে ৩৭টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৭০৫ জনকে। ময়মনসিংহ বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১১১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ২ হাজার ৩৮৪ জন নেতাকর্মীকে।

বরিশাল বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ৭৪টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৭৪৮ জনকে। খুলনা বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৪১টি, এই বিভাগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৫ জনকে এবং সিলেট বিভাগে নেতাকর্মীদের নামে মামলা রয়েছে ১৫৫টি, এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৩৭৯ জনকে।

বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি’র ওপর চালানো হয় ক্র্যাকডাউন। মিথ্যা মামলায় আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়। বর্তমান সরকার জোর করে ক্ষমতায় থাকার জন্য নির্বাচনের আগে বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন ও অত্যাচার চালিয়েছে এবং এখনো চালাচ্ছে।