ঢাকা ০৫:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছিনতাই মামলায় ছাত্রলীগ নেতা কারাগারে

ক্যাম্পাস প্রতিনিধি:-
  • আপডেট সময় ১১:১৭:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৭২ বার পড়া হয়েছে

ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের আরাফাত ওরফে জুয়েল।

হত্যার ভয় দেখিয়ে মোবাইল ও নগদ অর্থ ছিনতাইয়ের একটি মামলায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের আরাফাত ওরফে জুয়েলকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বরিশাল মেট্রোপলিটন আদালতে হাজিরা দিতে এলে বিচারক তাকে কারাগারে প্রেরণ করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন্দর থানার নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) ফজলুল রহমান।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের ২৪ এপ্রিল বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ হাসিনা হলের পার্শ্ববর্তী এলাকায় সাব্বির হোসেন নামের এক তরুণকে জোরপূর্বক তুলে আনা হয়। পরে ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তার কাছে থাকা মোবাইল ফোন এবং নগদ টাকা ছিনতাই করে আরাফাতসহ আরও দুজন। এ সময় ওই তরুণকে মারধর করা হয় বলেও মামলা নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন আদালতে বন্দর থানার দায়িত্বরত নিবন্ধন কর্মকর্তা ফজলুল রহমান জানান, থানায় অভিযোগ দায়েরের পর গত বছরের ৩১ মে পর্যন্ত বিষয়টির তদন্ত করে পুলিশ। পরে যথাযথ আলামত ও প্রমাণ সাপেক্ষে বিচারের জন্য মামলাটি আদালতে পাঠানো হয়। রোববার আসামি হাজির হলে তাকে কারাগারে পাঠান আদালত।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আরাফাতের নামে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানায় পুলিশ সদস্য নিয়োগ পরীক্ষায় প্রক্সি দেওয়ার অভিযোগে একটি মামলা রয়েছে। সেই ঘটনায় ২০২১ সালেও একবার কারাবরণ করেছিলেন তিনি। জামিনে মুক্তি পেয়ে ফের বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নানারকম অপরাধ কর্মকাণ্ডে যুক্ত হওয়ার অভিযোগ রয়েছে আরাফাতের বিরুদ্ধে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একটি অংশের মদদে আবুল খায়ের আরাফাত দিনের পর দিন ক্যাম্পাসে নানা অপরাধ সংগঠিত করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বর্তমান সিটি মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ সমর্থিত ছাত্রলীগের প্রতিনিধি হিসেবে একাধিক মামলার ডজনখানেক আসামি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) ড. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া।

আসামিদের নিয়ে সভা করার কারণ জানতে উপাচার্যের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও বিষয়টি শুনেই তিনি মোবাইল ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের কোনো কমিটি নেই। যারা ছাত্রলীগের নাম ভাঙিয়ে নানা অপরাধে লিপ্ত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। ক্যাম্পাসে কমিটি করার সময় বিতর্কিত কাউকে রাখা হবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

ছিনতাই মামলায় ছাত্রলীগ নেতা কারাগারে

আপডেট সময় ১১:১৭:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হত্যার ভয় দেখিয়ে মোবাইল ও নগদ অর্থ ছিনতাইয়ের একটি মামলায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের আরাফাত ওরফে জুয়েলকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বরিশাল মেট্রোপলিটন আদালতে হাজিরা দিতে এলে বিচারক তাকে কারাগারে প্রেরণ করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন্দর থানার নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) ফজলুল রহমান।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের ২৪ এপ্রিল বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ হাসিনা হলের পার্শ্ববর্তী এলাকায় সাব্বির হোসেন নামের এক তরুণকে জোরপূর্বক তুলে আনা হয়। পরে ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তার কাছে থাকা মোবাইল ফোন এবং নগদ টাকা ছিনতাই করে আরাফাতসহ আরও দুজন। এ সময় ওই তরুণকে মারধর করা হয় বলেও মামলা নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন আদালতে বন্দর থানার দায়িত্বরত নিবন্ধন কর্মকর্তা ফজলুল রহমান জানান, থানায় অভিযোগ দায়েরের পর গত বছরের ৩১ মে পর্যন্ত বিষয়টির তদন্ত করে পুলিশ। পরে যথাযথ আলামত ও প্রমাণ সাপেক্ষে বিচারের জন্য মামলাটি আদালতে পাঠানো হয়। রোববার আসামি হাজির হলে তাকে কারাগারে পাঠান আদালত।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আরাফাতের নামে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানায় পুলিশ সদস্য নিয়োগ পরীক্ষায় প্রক্সি দেওয়ার অভিযোগে একটি মামলা রয়েছে। সেই ঘটনায় ২০২১ সালেও একবার কারাবরণ করেছিলেন তিনি। জামিনে মুক্তি পেয়ে ফের বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নানারকম অপরাধ কর্মকাণ্ডে যুক্ত হওয়ার অভিযোগ রয়েছে আরাফাতের বিরুদ্ধে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একটি অংশের মদদে আবুল খায়ের আরাফাত দিনের পর দিন ক্যাম্পাসে নানা অপরাধ সংগঠিত করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বর্তমান সিটি মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ সমর্থিত ছাত্রলীগের প্রতিনিধি হিসেবে একাধিক মামলার ডজনখানেক আসামি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) ড. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া।

আসামিদের নিয়ে সভা করার কারণ জানতে উপাচার্যের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও বিষয়টি শুনেই তিনি মোবাইল ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের কোনো কমিটি নেই। যারা ছাত্রলীগের নাম ভাঙিয়ে নানা অপরাধে লিপ্ত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। ক্যাম্পাসে কমিটি করার সময় বিতর্কিত কাউকে রাখা হবে না।