ঢাকা ০৫:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টেবিলে পিস্তল রেখে ক্লাস নিতেন মেডিকেল শিক্ষক রায়হান শরীফ

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০২:২২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪
  • / ১০৭ বার পড়া হয়েছে

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীত

সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের শিক্ষক রায়হান শরীফ এক সময় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে জানা গেছে। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজে লেখাপড়া করেছেন। তিনি টেবিলে পিস্তল রেখে ক্লাস নিতেন বলে মেডিকেল কলেজটির শিক্ষার্থীদের ভাষ্য।

রায়হান শরীফের বাবা আব্দুর রাজ্জাক সিরাজগঞ্জ ইসলামিয়া সরকারি কলেজ ও সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁদের গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের শিমলা গ্রামে। বর্তমানে রায়হান শরীফ পরিবার নিয়ে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের পাশের একটি ভবনে বসবাস করেন।

এ বিষয়ে জানতে শিক্ষক রায়হান শরীফের বাবা আব্দুর রাজ্জাকের মোবাইল ফোনে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এ দিকে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার ও কলেজ থেকে অপসারণ না করা পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারদিন আহমেদ শুভ বলেন, ‘ওই শিক্ষক সব সময় গরম দেখাতেন। অস্ত্র নিয়ে ক্লাসে আসতেন। শিক্ষার্থীরা ভয়ে কিছু বলতে পারত না। বিষয়টি আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষা অবগত করেছি। তারপরও কিছু হয়নি। শিক্ষক বলেন, আমি মেডিকেল কলেজে লেখাপড়ার সময় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম। কীভাবে শায়েস্তা করতে হয় আমি জানি। সকালে তিনি ভাইভা ক্লাসে আসেন। এসে আমাদের উদ্দেশে বলতে থাকেন, পরীক্ষার একটা প্রশ্নের উত্তর দিতে না পারলে গুলি করে মারা হবে। তখন শিক্ষার্থীরা সবাই ভয় পেয়ে যায়। আমরা প্রতিবাদ করলে তিনি গুলি ছুড়ে মারেন এবং গুলিতে তমাল আহত হয়।’

তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রওনক জাহান রিজা বলেন, ‘কোনো কারণ নেই। তিনি যখন ক্লাস নিতে আসেন প্রথমেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও ধারালো ছুরি বের করে টেবিলের ওপর রাখতেন। তারপর পিস্তলে গুলি লোড করে আমাদের দিকে তাক করে রাখেন। এমনটাই তিনি সব সময় করে থাকেন। গতকাল সন্ধ্যায় তিনি ক্লাস করার জন্য ডেকেছিলেন আমাদের। সন্ধ্যায় তো ক্লাস থাকার কথা না। কারণ ক্লাস সিডিউল দুপুর ৩টা পর্যন্ত। তাঁর ক্লাসে না যাওয়ার কারণে তিনি আমাদের ফোন করেন। তোরা কেন ফোন কল ব্যাক করিসনি। আজ তোদের বুঝিয়ে দেব। একটা প্রশ্নের উত্তর পারবি না তো গুলি করে মেরে ফেলব। এই বলে গুলি করেন।’

কলেজের আরেক শিক্ষার্থী রাকিব বলেন, ‘আমাদের ভয় দেখানোর জন্য তিনি পিস্তল নিয়ে ক্লাসে আসতেন। কলেজে যখন থেকে ভর্তি হয়েছি তখন থেকে দেখতাম তিনি ক্লাসরুমে পিস্তল নিয়ে ঢুকতেন এবং টিবিলের ওপর পিস্তল ও গুলি রেখে দিতেন। শুধু তাই নয়, ছাত্রীদের তিনি কুপ্রস্তাব দিতেন। ছাত্রীদের মোবাইলে মেসেজ দিতেন তাঁর কাছে আসার জন্য।’

ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীত
ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীত

ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীতকলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. আব্দুল্লাহ হেল কাফিও বলেন, রায়হান শরীফ অস্ত্র নিয়ে কলেজে আসতেন। তিনি বলেন, ‘এটা সবাই জানে। মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষকে বিষয়টি জানালেও কোনো সুরাহা হয়নি। অধ্যক্ষ ওপরের মহলকেও বিষয়টি জানিয়েছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

টেবিলে পিস্তল রেখে ক্লাস নিতেন মেডিকেল শিক্ষক রায়হান শরীফ

আপডেট সময় ০২:২২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪

সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের শিক্ষক রায়হান শরীফ এক সময় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে জানা গেছে। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজে লেখাপড়া করেছেন। তিনি টেবিলে পিস্তল রেখে ক্লাস নিতেন বলে মেডিকেল কলেজটির শিক্ষার্থীদের ভাষ্য।

রায়হান শরীফের বাবা আব্দুর রাজ্জাক সিরাজগঞ্জ ইসলামিয়া সরকারি কলেজ ও সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁদের গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের শিমলা গ্রামে। বর্তমানে রায়হান শরীফ পরিবার নিয়ে সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের পাশের একটি ভবনে বসবাস করেন।

এ বিষয়ে জানতে শিক্ষক রায়হান শরীফের বাবা আব্দুর রাজ্জাকের মোবাইল ফোনে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এ দিকে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার ও কলেজ থেকে অপসারণ না করা পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারদিন আহমেদ শুভ বলেন, ‘ওই শিক্ষক সব সময় গরম দেখাতেন। অস্ত্র নিয়ে ক্লাসে আসতেন। শিক্ষার্থীরা ভয়ে কিছু বলতে পারত না। বিষয়টি আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষা অবগত করেছি। তারপরও কিছু হয়নি। শিক্ষক বলেন, আমি মেডিকেল কলেজে লেখাপড়ার সময় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম। কীভাবে শায়েস্তা করতে হয় আমি জানি। সকালে তিনি ভাইভা ক্লাসে আসেন। এসে আমাদের উদ্দেশে বলতে থাকেন, পরীক্ষার একটা প্রশ্নের উত্তর দিতে না পারলে গুলি করে মারা হবে। তখন শিক্ষার্থীরা সবাই ভয় পেয়ে যায়। আমরা প্রতিবাদ করলে তিনি গুলি ছুড়ে মারেন এবং গুলিতে তমাল আহত হয়।’

তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রওনক জাহান রিজা বলেন, ‘কোনো কারণ নেই। তিনি যখন ক্লাস নিতে আসেন প্রথমেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও ধারালো ছুরি বের করে টেবিলের ওপর রাখতেন। তারপর পিস্তলে গুলি লোড করে আমাদের দিকে তাক করে রাখেন। এমনটাই তিনি সব সময় করে থাকেন। গতকাল সন্ধ্যায় তিনি ক্লাস করার জন্য ডেকেছিলেন আমাদের। সন্ধ্যায় তো ক্লাস থাকার কথা না। কারণ ক্লাস সিডিউল দুপুর ৩টা পর্যন্ত। তাঁর ক্লাসে না যাওয়ার কারণে তিনি আমাদের ফোন করেন। তোরা কেন ফোন কল ব্যাক করিসনি। আজ তোদের বুঝিয়ে দেব। একটা প্রশ্নের উত্তর পারবি না তো গুলি করে মেরে ফেলব। এই বলে গুলি করেন।’

কলেজের আরেক শিক্ষার্থী রাকিব বলেন, ‘আমাদের ভয় দেখানোর জন্য তিনি পিস্তল নিয়ে ক্লাসে আসতেন। কলেজে যখন থেকে ভর্তি হয়েছি তখন থেকে দেখতাম তিনি ক্লাসরুমে পিস্তল নিয়ে ঢুকতেন এবং টিবিলের ওপর পিস্তল ও গুলি রেখে দিতেন। শুধু তাই নয়, ছাত্রীদের তিনি কুপ্রস্তাব দিতেন। ছাত্রীদের মোবাইলে মেসেজ দিতেন তাঁর কাছে আসার জন্য।’

ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীত
ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীত

ক্লাসে প্রবেশ করেই ব্যাগ থেকে পিস্তল ও চাকু বের করে রাখতেন শিক্ষক রায়হান শরীফ। ছবি: সংগৃহীতকলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. আব্দুল্লাহ হেল কাফিও বলেন, রায়হান শরীফ অস্ত্র নিয়ে কলেজে আসতেন। তিনি বলেন, ‘এটা সবাই জানে। মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষকে বিষয়টি জানালেও কোনো সুরাহা হয়নি। অধ্যক্ষ ওপরের মহলকেও বিষয়টি জানিয়েছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।’