ঢাকা ০২:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
তাঁরা হুমকি দেন, ওপরের নির্দেশে কাজ বন্ধ থাকবে। যদি নির্দেশ অমান্য করা হয়, তাহলে বালু টানার ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হবে।

উপরের নির্দেশে রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিয়েছে ছাত্রলীগ

নিউজ ডেস্ক:-
  • আপডেট সময় ০১:৪৯:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪
  • / ৭০ বার পড়া হয়েছে

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় বাইপাস সড়কের কাজ বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে। বিষয়টি দ্রুত সুরাহা না হলে নির্ধারিত সময়ে সড়কের কাজ শেষ হওয়া নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

তবে কাজ বন্ধ করার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তোফায়েল আহমেদ। মুঠোফোনে তিনি বলেন, ‘আমরা কেন কাজে বাধা দিতে যাব। কাজ দেখার দায়িত্ব কি আমাদের।’

কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এবং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এনডিই লিমিটেড সূত্রে জানা যায়, জেলা সদরের বিন্নাটি এলাকা থেকে পাকুন্দিয়া হয়ে গাজীপুরের কাপাসিয়ার টোক বাজার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ২২ কিলোমিটার সড়কের সংস্কারকাজ শুরু হয় ২০২০ সালের জুলাই মাসে। দুই দফায় সময় বাড়িয়ে যেটা শেষ হওয়ার কথা এ বছরের জুন মাসে। সড়কটি সংস্কারের জন্য মোট বরাদ্দ ১৬২ কোটি টাকা, আর জমি অধিগ্রহণের জন্য বরাদ্দ ৫৫০ কোটি টাকা।

এই সড়কের মধ্যে পাকুন্দিয়া বাজারের পাশ দিয়ে দুই কিলোমিটার বাইপাস সড়ক নতুন করে নির্মাণ করা হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের দাবি, সাড়ে ২২ কিলোমিটার এই সড়কের ১৮ ফুট থেকে ৩২ ফুট প্রসস্থকরণের কাজ প্রায় ৭০ ভাগ সম্পন্ন হয়ে গেছে। তবে তাদের সমস্যা হচ্ছে বাইপাস সড়কের কাজটি করতে গিয়ে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে প্রায় দুই মাস বালুসংকটের জন্য বাইপাস সড়কের কাজ বন্ধ ছিল। তবে সাত দিন হলো বালুসংকট কেটে যাওয়ায় নতুন সড়ক ভরাটের কাজ চলছিল। কিন্তু গত রোববার স্থানীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া এখন কাজ বন্ধ রয়েছে। বিষয়টি সড়ক ও জননপথ বিভাগকে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। এদিকে আবহাওয়ার পরিস্থিতিও ভালো নয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। তাই কাজটি দ্রুত শেষ না করতে পারলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ কাজ সম্পন্ন হওয়া নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে ঢাকার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড (এনডিএ) কাজটি করলেও পাকুন্দিয়া বাইপাস সড়কের কাজটি সাব–ঠিকাদার হিসেবে দেখভাল করছেন স্থানীয় মারিয়া কনস্ট্রাকশনের ঠিকাদার জমিরুল ইসলাম।

জমিরুল বলেন, রোববার বেলা আড়াইটার দিকে পাকুন্দিয়া মহিলা কলেজের পেছনে বাইপাস সড়কে বালু ফেলার কাজ চলাকালে হঠাৎ করে পাকুন্দিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদসহ ছাত্রলীগের চার-পাঁচজন নেতা-কর্মী গিয়ে সড়কের কাজে বাধা দেন। তাঁরা হুমকি দেন, ওপরের নির্দেশে কাজ বন্ধ থাকবে। যদি নির্দেশ অমান্য করা হয়, তাহলে বালু টানার ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হবে।

ছাত্রলীগের নেতারা ‘ওপরের নির্দেশে’ কাজ বন্ধ রাখার কথা বললেও তাঁরা কোনো চাঁদা বা টাকা দাবি করেননি বলে জানান সাব–ঠিকাদার জমিরুল। হুমকির পর থেকে সড়কের কাজ বন্ধ রেখেছেন তিনি।

জমিরুল বলেন, পাকুন্দিয়া বাজারের শুরুতে মৌসুমী সিনেমা হল থেকে পাকুন্দিয়া বাজারের শেষ মাথা গরুর হাটের পরের বড়াটিয়া মোড়ের আগপর্যন্ত দুই কিলোমিটার বাইপাস সড়কের বালু ভরাটের প্রায় ৯০০ মিটার পর্যন্ত কাজ হয়েছিল। ছাত্রলীগের নেতারা বাধা না দিলে বাকি কাজ দ্রুত শেষ হয়ে যেত।

গতকাল বিকেলে সরেজমিনে গিয়েও কাজ বন্ধ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। মূল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এনডিইর প্রকৌশলী আবদুল হাকিম বলেন, ২০২০ সালের জুলাইয়ে শুরু হওয়া কাজটির এরই মধ্যে দুবার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। এখন পাকুন্দিয়া অংশের বাইপাস অংশ নিয়ে নতুন করে ঝামেলা তৈরি হয়েছে। যদি একবার ভারী বর্ষণ হয়, তাহলে কাজ জুন মাসের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করা যাবে কি না, এ নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। সাড়ে ২২ কিলোমিটার সড়কের ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কিশোরগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া বলেন, খোঁজখবর নিয়ে দ্রুত কাজ চালু করার ব্যবস্থা নেবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

তাঁরা হুমকি দেন, ওপরের নির্দেশে কাজ বন্ধ থাকবে। যদি নির্দেশ অমান্য করা হয়, তাহলে বালু টানার ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হবে।

উপরের নির্দেশে রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিয়েছে ছাত্রলীগ

আপডেট সময় ০১:৪৯:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় বাইপাস সড়কের কাজ বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে। বিষয়টি দ্রুত সুরাহা না হলে নির্ধারিত সময়ে সড়কের কাজ শেষ হওয়া নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

তবে কাজ বন্ধ করার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তোফায়েল আহমেদ। মুঠোফোনে তিনি বলেন, ‘আমরা কেন কাজে বাধা দিতে যাব। কাজ দেখার দায়িত্ব কি আমাদের।’

কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এবং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এনডিই লিমিটেড সূত্রে জানা যায়, জেলা সদরের বিন্নাটি এলাকা থেকে পাকুন্দিয়া হয়ে গাজীপুরের কাপাসিয়ার টোক বাজার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ২২ কিলোমিটার সড়কের সংস্কারকাজ শুরু হয় ২০২০ সালের জুলাই মাসে। দুই দফায় সময় বাড়িয়ে যেটা শেষ হওয়ার কথা এ বছরের জুন মাসে। সড়কটি সংস্কারের জন্য মোট বরাদ্দ ১৬২ কোটি টাকা, আর জমি অধিগ্রহণের জন্য বরাদ্দ ৫৫০ কোটি টাকা।

এই সড়কের মধ্যে পাকুন্দিয়া বাজারের পাশ দিয়ে দুই কিলোমিটার বাইপাস সড়ক নতুন করে নির্মাণ করা হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের দাবি, সাড়ে ২২ কিলোমিটার এই সড়কের ১৮ ফুট থেকে ৩২ ফুট প্রসস্থকরণের কাজ প্রায় ৭০ ভাগ সম্পন্ন হয়ে গেছে। তবে তাদের সমস্যা হচ্ছে বাইপাস সড়কের কাজটি করতে গিয়ে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে প্রায় দুই মাস বালুসংকটের জন্য বাইপাস সড়কের কাজ বন্ধ ছিল। তবে সাত দিন হলো বালুসংকট কেটে যাওয়ায় নতুন সড়ক ভরাটের কাজ চলছিল। কিন্তু গত রোববার স্থানীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া এখন কাজ বন্ধ রয়েছে। বিষয়টি সড়ক ও জননপথ বিভাগকে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। এদিকে আবহাওয়ার পরিস্থিতিও ভালো নয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। তাই কাজটি দ্রুত শেষ না করতে পারলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ কাজ সম্পন্ন হওয়া নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে ঢাকার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড (এনডিএ) কাজটি করলেও পাকুন্দিয়া বাইপাস সড়কের কাজটি সাব–ঠিকাদার হিসেবে দেখভাল করছেন স্থানীয় মারিয়া কনস্ট্রাকশনের ঠিকাদার জমিরুল ইসলাম।

জমিরুল বলেন, রোববার বেলা আড়াইটার দিকে পাকুন্দিয়া মহিলা কলেজের পেছনে বাইপাস সড়কে বালু ফেলার কাজ চলাকালে হঠাৎ করে পাকুন্দিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদসহ ছাত্রলীগের চার-পাঁচজন নেতা-কর্মী গিয়ে সড়কের কাজে বাধা দেন। তাঁরা হুমকি দেন, ওপরের নির্দেশে কাজ বন্ধ থাকবে। যদি নির্দেশ অমান্য করা হয়, তাহলে বালু টানার ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হবে।

ছাত্রলীগের নেতারা ‘ওপরের নির্দেশে’ কাজ বন্ধ রাখার কথা বললেও তাঁরা কোনো চাঁদা বা টাকা দাবি করেননি বলে জানান সাব–ঠিকাদার জমিরুল। হুমকির পর থেকে সড়কের কাজ বন্ধ রেখেছেন তিনি।

জমিরুল বলেন, পাকুন্দিয়া বাজারের শুরুতে মৌসুমী সিনেমা হল থেকে পাকুন্দিয়া বাজারের শেষ মাথা গরুর হাটের পরের বড়াটিয়া মোড়ের আগপর্যন্ত দুই কিলোমিটার বাইপাস সড়কের বালু ভরাটের প্রায় ৯০০ মিটার পর্যন্ত কাজ হয়েছিল। ছাত্রলীগের নেতারা বাধা না দিলে বাকি কাজ দ্রুত শেষ হয়ে যেত।

গতকাল বিকেলে সরেজমিনে গিয়েও কাজ বন্ধ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। মূল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এনডিইর প্রকৌশলী আবদুল হাকিম বলেন, ২০২০ সালের জুলাইয়ে শুরু হওয়া কাজটির এরই মধ্যে দুবার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। এখন পাকুন্দিয়া অংশের বাইপাস অংশ নিয়ে নতুন করে ঝামেলা তৈরি হয়েছে। যদি একবার ভারী বর্ষণ হয়, তাহলে কাজ জুন মাসের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করা যাবে কি না, এ নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। সাড়ে ২২ কিলোমিটার সড়কের ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কিশোরগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া বলেন, খোঁজখবর নিয়ে দ্রুত কাজ চালু করার ব্যবস্থা নেবেন।