ঢাকা ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বগুড়ায় শজিমেক ছাত্রলীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৮

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৮:৩৯:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪
  • / ১০০ বার পড়া হয়েছে

ছাত্রলীগের সংঘর্ষের দৃশ্য

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে (শজিমেক) পড়ার টেবিল দখলকে কেন্দ্র ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে আট জন আহত হয়েছেন।

কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেনের অনুসারিরা ক্যাম্পাসে আগের মতো সংঘাত সৃষ্টি করার পায়তারা করছে। এ হামলার সঙ্গে আমাদের কেউ জড়িত নয়। কলেজ প্রশাসনের তদেন্ত তা বেরিয়ে আসবে।

কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শৈশব রায় বলেন, পারিবারিক একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বর্তমানে সিলেটে আছি। একটি টেবিল দখলকে কেন্দ্রে করে কিছু দুষ্ট প্রকৃতির শিক্ষার্থীরা বিনা উসকানিতে আমার কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে আহত করেছে। এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করতে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করতে জরুরী সভা আহবান করা হয়েছে।

শৈশব রায় আরও বলেন, মেডিকেল কলেজে দীর্ঘদিন ধরে অপকর্মে জড়িত কতিপয় শিক্ষার্থী। তাদের কারণে প্রায়ই সহিংসতার ঘটনা ঘটে। কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটিও হয়। কিন্ত কমিটির সুপারিশ আলোর মুখ দেখে না। সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিলে নতুন করে এ ঘটনা ঘটতো না।

জানতে চাইলে কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন রনি বলেন, পড়াশোনা ও রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন শেসে আমি ক্যাম্পাস থেকে অনেক আগেই চলে এসেছি। গতকালের ঘটনা নিয়ে কিছু জানিনা। বর্তমানে যারা দায়িত্বে আছেন তারাই বিষয়টি দেখবেন।

জানতে চাইলে মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আনিসুর রহমান বলেন, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে আহত কয়েকজনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। অধ্যক্ষের নির্দেশে তিনজন শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

বগুড়ায় শজিমেক ছাত্রলীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৮

আপডেট সময় ০৮:৩৯:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে (শজিমেক) পড়ার টেবিল দখলকে কেন্দ্র ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে আট জন আহত হয়েছেন।

কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেনের অনুসারিরা ক্যাম্পাসে আগের মতো সংঘাত সৃষ্টি করার পায়তারা করছে। এ হামলার সঙ্গে আমাদের কেউ জড়িত নয়। কলেজ প্রশাসনের তদেন্ত তা বেরিয়ে আসবে।

কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শৈশব রায় বলেন, পারিবারিক একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বর্তমানে সিলেটে আছি। একটি টেবিল দখলকে কেন্দ্রে করে কিছু দুষ্ট প্রকৃতির শিক্ষার্থীরা বিনা উসকানিতে আমার কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে আহত করেছে। এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করতে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করতে জরুরী সভা আহবান করা হয়েছে।

শৈশব রায় আরও বলেন, মেডিকেল কলেজে দীর্ঘদিন ধরে অপকর্মে জড়িত কতিপয় শিক্ষার্থী। তাদের কারণে প্রায়ই সহিংসতার ঘটনা ঘটে। কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটিও হয়। কিন্ত কমিটির সুপারিশ আলোর মুখ দেখে না। সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিলে নতুন করে এ ঘটনা ঘটতো না।

জানতে চাইলে কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন রনি বলেন, পড়াশোনা ও রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন শেসে আমি ক্যাম্পাস থেকে অনেক আগেই চলে এসেছি। গতকালের ঘটনা নিয়ে কিছু জানিনা। বর্তমানে যারা দায়িত্বে আছেন তারাই বিষয়টি দেখবেন।

জানতে চাইলে মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আনিসুর রহমান বলেন, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে আহত কয়েকজনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। অধ্যক্ষের নির্দেশে তিনজন শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।