ঢাকা ১২:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশকে নিয়ে দেশী-বিদেশী চক্রান্ত শুরু হয়েছে : শিবির সভাপতি

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:৫৫:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ মে ২০২৪
  • / ৪৬ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশকে নিয়ে দেশী-বিদেশী অনেক চক্রান্ত শুরু হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম। সোমবার ছাত্রশিবির খুলনা মহানগর শাখার উদ্যোগে বালাকোট দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, আমাদের ৫৬ হাজার বর্গমাইলের এই ছোট দেশটিকে নিয়েও দেশী-বিদেশী অনেক চক্রান্ত শুরু হয়েছে। আধিপত্যবাদী রাষ্ট্র এবং তাদের এদেশীয় দোসররা আমাদের মাতৃভূমি ও ইসলামকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতেছে উঠেছে। আমরা স্বাধীন রাষ্ট্রের নাগরিক হয়েও পরিপূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করতে দেয়া হচ্ছে না। দেশপ্রেম ও ইসলামের কথা বলেলেই নানা রকম উপাধি দিয়ে আমাদের কন্ঠকে থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। গুম ও খুন করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা তাদের ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত আর রক্তচক্ষুকে ভয় পাই না।

মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, যুগে যুগে দেশমাতৃকা ও ইসলামকে নিয়ে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র করেছে এবং তা আজও অব্যাহত আছে। কিন্তু দেশ ও ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকে ঈমানদাররা কখনও মেনে নেয়নি, আমরাও মেনে নিব না। আজ বালাকোট দিবস আমাদের সেই ঈমানি শক্তির কথায় স্বরণ করিয়ে দেয়। দেশ ও ইসলামপ্রিয় জনতাকে সঙ্গে নিয়ে বালাকোটের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও ইসলাম বিরোধী সকল ষড়যন্ত্রকে আমরা রুখে দিবো, ইনশাআল্লাহ।

বালাকোট দিবসের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস টেনে শিবির সভাপতি বলেন, ১৮৩১ সালের ৬ মে ঐতিহাসিক বালাকোটের ময়দানে ইংরেজরা তাদের সমর্থনপুষ্ট শিখদের বিশাল বাহিনীকে মুসলিমদের ওপর লেলিয়ে দেয়।
বিজ্ঞাপন
তাদের ষড়যন্ত্র সফল করে উদীয়মান মুসলিম প্রজাতন্ত্রের আলো নিভিয়ে দেয়। কিন্ত সাইয়েদ আহমদ (রহঃ)-এর ঈমানদীপ্ত দ্বীন বিজয়ের আন্দোলন আমাদের ঈমানি চেতনাকে আরও শাণিত করে।

নিউজটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশকে নিয়ে দেশী-বিদেশী চক্রান্ত শুরু হয়েছে : শিবির সভাপতি

আপডেট সময় ১০:৫৫:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ মে ২০২৪

বাংলাদেশকে নিয়ে দেশী-বিদেশী অনেক চক্রান্ত শুরু হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম। সোমবার ছাত্রশিবির খুলনা মহানগর শাখার উদ্যোগে বালাকোট দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, আমাদের ৫৬ হাজার বর্গমাইলের এই ছোট দেশটিকে নিয়েও দেশী-বিদেশী অনেক চক্রান্ত শুরু হয়েছে। আধিপত্যবাদী রাষ্ট্র এবং তাদের এদেশীয় দোসররা আমাদের মাতৃভূমি ও ইসলামকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতেছে উঠেছে। আমরা স্বাধীন রাষ্ট্রের নাগরিক হয়েও পরিপূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করতে দেয়া হচ্ছে না। দেশপ্রেম ও ইসলামের কথা বলেলেই নানা রকম উপাধি দিয়ে আমাদের কন্ঠকে থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। গুম ও খুন করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা তাদের ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত আর রক্তচক্ষুকে ভয় পাই না।

মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, যুগে যুগে দেশমাতৃকা ও ইসলামকে নিয়ে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র করেছে এবং তা আজও অব্যাহত আছে। কিন্তু দেশ ও ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকে ঈমানদাররা কখনও মেনে নেয়নি, আমরাও মেনে নিব না। আজ বালাকোট দিবস আমাদের সেই ঈমানি শক্তির কথায় স্বরণ করিয়ে দেয়। দেশ ও ইসলামপ্রিয় জনতাকে সঙ্গে নিয়ে বালাকোটের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও ইসলাম বিরোধী সকল ষড়যন্ত্রকে আমরা রুখে দিবো, ইনশাআল্লাহ।

বালাকোট দিবসের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস টেনে শিবির সভাপতি বলেন, ১৮৩১ সালের ৬ মে ঐতিহাসিক বালাকোটের ময়দানে ইংরেজরা তাদের সমর্থনপুষ্ট শিখদের বিশাল বাহিনীকে মুসলিমদের ওপর লেলিয়ে দেয়।
বিজ্ঞাপন
তাদের ষড়যন্ত্র সফল করে উদীয়মান মুসলিম প্রজাতন্ত্রের আলো নিভিয়ে দেয়। কিন্ত সাইয়েদ আহমদ (রহঃ)-এর ঈমানদীপ্ত দ্বীন বিজয়ের আন্দোলন আমাদের ঈমানি চেতনাকে আরও শাণিত করে।