ঢাকা ০১:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গরম কমলে বড় আকারে আন্দোলনে নামবো: মান্না

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:৪৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪
  • / ২৫ বার পড়া হয়েছে

গরম কমলে বড় আকারে আন্দোলনে নামার ঘোষণা দিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেন, এই আন্দোলন আওয়ামী লীগের বদলে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসানোর আন্দোলন নয়। এই আন্দোলন আপনাদের, এই আন্দোলন দাম কমানোর, এই আন্দোলন ঋণের বোঝা কমানোর, বিদ্যুতের দাবিতে—অন্ধকার থেকে আলোতে থাকার, ছাত্রদের শিক্ষার ব্যবস্থা করার।

শুক্রবার (১০ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত প্রতীকী অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। বিদ্যুৎ-জ্বালানি ও রেলের ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ নাগরিক অধিকার আন্দোলন এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

জনগণকে পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আওয়ামী লীগ সারাদেশের জনগণকে অসুস্থ করে নিজেদের চেহারা ভালো করেছে। যাদের কিছুই ছিল না, টাকা বানিয়েছে আওয়ামী লীগের লোক। কত দেখেছি! আমি নিজে আওয়ামী লীগ করতাম। টাকা নেই, ঠিক মতো খেতে পায় না, দুই পাড়ে ভাঙ্গা গাল; এখন লক্ষ-কোটি টাকা কামাইয়ের পরে, চেহারা দেখবেন, যদি ছবি দেখেন, ওই ভাঙ্গা গাল ফুলে হয়েছে তাল তাল। কত সুন্দর চেহারা!

তিনি বলেন, আগামী তিন মাস বিদেশ থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আমদানি করার টাকা পর্যন্ত এ সরকারের কাছে নেই। আমাদের রপ্তানি বাড়ানোর আর কোনো সুযোগ নেই। কেবলমাত্র বিদেশিরা যদি আমাদের ডলার দেয় তাহলে এদেশ বাঁচতে পারে, নাহলে এদেশ বাঁচতে পারবে না।

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে মান্না বলেন, মানুষ ভোট দেয়নি, এখনো দেয় না। এই যে উপজেলা নির্বাচন হলো, বাংলাদেশের ইতিহাসে উপজেলায় এত কম কখনো পড়েনি। এটা সরকারি হিসাব। আওয়ামী লীগের দলের লোক সরকারের সঙ্গে নেই। যদি থাকতো তাহলে তারা ভোট দিতে যেত।

বিরোধী দল দুর্বল হয়নি, আমরা আমাদের জায়গায় আছি উল্লেখ করে ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, যারা মনে করেন, ৭ জানুয়ারির পরে বিরোধী দল দুর্বল হয়েছে, সরকার আরও শক্তিশালী হয়েছে, তাদেরকে অর্থনৈতিক চিত্র দেখার জন্য বলি। অপেক্ষা করেন, সরকারের এই দুর্বলতা যখন মানুষ বুঝবে তখন আবার রাস্তায় নামবে সবাই।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে নাগরিক ঐক্যের এ নেতা বলেন, ভোট কেড়ে নিয়েছে, জিনিসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে, আপনার (জনগণ) মাথায় ঋণের বোঝা চাপিয়েছে, বিদ্যুতের দাম বছরে চারবার করে সমন্বয় করবে মানে চারবার করে বাড়াবে। পাঁচ বছর সমন্বয় করলে ২০ বার বাড়াবে। তখন আর বিদ্যুৎ কিনতে পারবেন কেউ? অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে পুরো দেশ।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

গরম কমলে বড় আকারে আন্দোলনে নামবো: মান্না

আপডেট সময় ১১:৪৭:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪

গরম কমলে বড় আকারে আন্দোলনে নামার ঘোষণা দিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেন, এই আন্দোলন আওয়ামী লীগের বদলে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসানোর আন্দোলন নয়। এই আন্দোলন আপনাদের, এই আন্দোলন দাম কমানোর, এই আন্দোলন ঋণের বোঝা কমানোর, বিদ্যুতের দাবিতে—অন্ধকার থেকে আলোতে থাকার, ছাত্রদের শিক্ষার ব্যবস্থা করার।

শুক্রবার (১০ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত প্রতীকী অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। বিদ্যুৎ-জ্বালানি ও রেলের ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ নাগরিক অধিকার আন্দোলন এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

জনগণকে পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আওয়ামী লীগ সারাদেশের জনগণকে অসুস্থ করে নিজেদের চেহারা ভালো করেছে। যাদের কিছুই ছিল না, টাকা বানিয়েছে আওয়ামী লীগের লোক। কত দেখেছি! আমি নিজে আওয়ামী লীগ করতাম। টাকা নেই, ঠিক মতো খেতে পায় না, দুই পাড়ে ভাঙ্গা গাল; এখন লক্ষ-কোটি টাকা কামাইয়ের পরে, চেহারা দেখবেন, যদি ছবি দেখেন, ওই ভাঙ্গা গাল ফুলে হয়েছে তাল তাল। কত সুন্দর চেহারা!

তিনি বলেন, আগামী তিন মাস বিদেশ থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আমদানি করার টাকা পর্যন্ত এ সরকারের কাছে নেই। আমাদের রপ্তানি বাড়ানোর আর কোনো সুযোগ নেই। কেবলমাত্র বিদেশিরা যদি আমাদের ডলার দেয় তাহলে এদেশ বাঁচতে পারে, নাহলে এদেশ বাঁচতে পারবে না।

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে মান্না বলেন, মানুষ ভোট দেয়নি, এখনো দেয় না। এই যে উপজেলা নির্বাচন হলো, বাংলাদেশের ইতিহাসে উপজেলায় এত কম কখনো পড়েনি। এটা সরকারি হিসাব। আওয়ামী লীগের দলের লোক সরকারের সঙ্গে নেই। যদি থাকতো তাহলে তারা ভোট দিতে যেত।

বিরোধী দল দুর্বল হয়নি, আমরা আমাদের জায়গায় আছি উল্লেখ করে ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, যারা মনে করেন, ৭ জানুয়ারির পরে বিরোধী দল দুর্বল হয়েছে, সরকার আরও শক্তিশালী হয়েছে, তাদেরকে অর্থনৈতিক চিত্র দেখার জন্য বলি। অপেক্ষা করেন, সরকারের এই দুর্বলতা যখন মানুষ বুঝবে তখন আবার রাস্তায় নামবে সবাই।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে নাগরিক ঐক্যের এ নেতা বলেন, ভোট কেড়ে নিয়েছে, জিনিসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে, আপনার (জনগণ) মাথায় ঋণের বোঝা চাপিয়েছে, বিদ্যুতের দাম বছরে চারবার করে সমন্বয় করবে মানে চারবার করে বাড়াবে। পাঁচ বছর সমন্বয় করলে ২০ বার বাড়াবে। তখন আর বিদ্যুৎ কিনতে পারবেন কেউ? অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে পুরো দেশ।