ঢাকা ০৭:০৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে শাহবাগ থানা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:৪৯:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জুন ২০২৪
  • / ৫৬ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা থেকে সরিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তর পাশে নেওয়া হবে। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (তৃতীয় পর্যায়) (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প এলাকার ভেতর থেকে শাহবাগ থানা স্থানান্তরের বিষয়টি মন্ত্রিসভার নির্দেশনার জন্য বৈঠকে উপস্থাপন করা হলে মন্ত্রিসভা এ সিদ্ধান্ত দেয়। এর ফলে ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ’ প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা রইল না।

সূত্র জানায়, ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ’ প্রকল্প বাস্তবায়নে শাহবাগ থানা ছিল অন্যতম প্রধান বাধা। মন্ত্রণালয় এর আগেও এ বিষয়ে চেষ্টা-তদবির করলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থানা সরানোর উদ্যোগ নেয়নি। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনও থানা স্থানান্তরের বিরোধিতা করে আসছিল।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে শাহবাগ থানা

আপডেট সময় ১০:৪৯:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জুন ২০২৪

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা থেকে সরিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তর পাশে নেওয়া হবে। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (তৃতীয় পর্যায়) (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প এলাকার ভেতর থেকে শাহবাগ থানা স্থানান্তরের বিষয়টি মন্ত্রিসভার নির্দেশনার জন্য বৈঠকে উপস্থাপন করা হলে মন্ত্রিসভা এ সিদ্ধান্ত দেয়। এর ফলে ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ’ প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা রইল না।

সূত্র জানায়, ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ’ প্রকল্প বাস্তবায়নে শাহবাগ থানা ছিল অন্যতম প্রধান বাধা। মন্ত্রণালয় এর আগেও এ বিষয়ে চেষ্টা-তদবির করলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থানা সরানোর উদ্যোগ নেয়নি। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনও থানা স্থানান্তরের বিরোধিতা করে আসছিল।